অমিত সাহার যাব’জ্জীবন, মৃ’ত্যুদ’ণ্ড দাবিতে আপিল করবে আবরারের পরিবার

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হ’ত্যা মা’মলায় ২০ জনের মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আ’দালত। এছাড়া এ হ’ত্যাকা’ণ্ডের মূলহোতা অমিত সাহাসহ আরও ৫ জনের যাব’জ্জীবন কারাদ’ণ্ড দেওয়া হয়েছে। আবরারের পরিবার রায়ে তাৎক্ষনিকভাবে সন্তোষ প্রকাশ করলেও যাব’জ্জীবন প্রাপ্তদের মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের দাবিতে আপিল করার কথা জানানো হয়েছে।

বুধবার (৮ ডিসেম্বর) বেলা ১২টার দিকে এ রায় দেন আ’দালত। এতে যে ৫ জনের যাব’জ্জীবন রায় হয়েছে তাদেরসহ অমিত সাহার ফাঁ’সি দাবি করেছেন আবরারের মা রোকেয়া খাতুন।

তিনি বলেন, বিশেষ করে হ’ত্যায় সক্রিয়ভাবে জ’ড়িত ছিল অমিত সাহা। তারও ফাঁ’সি হওয়া দরকার। এর জন্য আবারও আ’দালতের দ্বারস্থ হবো। এই রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি জানাচ্ছি। রায় দ্রুত কার্যকর হলে পুরোপুরি সন্তুষ্ট হবো।

আবরার হ’ত্যা মা’মলার সব আ’সামির মৃ’ত্যুদ’ণ্ড দাবি করেন রোকেয়া খাতুন বলেন, হ’ত্যাকা’ণ্ডের মূলহোতা অমিত সাহা হ’ত্যাকা’ণ্ডের সময় ঘটনাস্থলে না থাকলেও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সে হ’ত্যাকা’ণ্ডের সব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে। অথচ তাকে মৃ’ত্যুদ’ণ্ড দেওয়া হয়নি। কী’ভাবে সে মৃ’ত্যুদ’ণ্ড থেকে বাদ যায় আমি বুঝতে পারলাম না।

তিনি আরও বলেন, আপনারাও ভিডিও ফুটেজের মাধ্যমে দেখেছেন ২৫ আ’সামি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আবরার হ’ত্যায় জড়িত ছিল। কী’ভাবে ৫ আ’সামির মৃ’ত্যুদ’ণ্ড থেকে বাদ গেল।

যাব’জ্জীবনপ্রাপ্ত আ’সামিরা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহতামিম ফুয়াদ, মুয়াজ ওরফে আবু হুরায়রা, বহিষ্কৃত গ্রন্থ ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ইশতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, বহিষ্কৃত আইনবিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহা ও আকাশ হোসেন। যাব’জ্জীবন কারাদ’ণ্ডের পাশাপাশি প্রত্যেকে ৫০ হাজার টাকা জ’রিমানা অনাদায়ে এক বছরের সশ্রম কারাদ’ণ্ডের আদেশ দেন আ’দালত।

মৃ’ত্যুদ’ণ্ডপ্রাপ্ত আ’সামিরা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, বহিষ্কৃত তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার ওরফে অ’পু, বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন ওরফে শান্ত, বহিষ্কৃত উপ-সমাজসেবাবিষয়ক সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, বহিষ্কৃত ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইস’লাম জিয়ন, বহিষ্কৃত কর্মী মুনতাসির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইস’লাম তানভীর, মুজাহিদুর রহমান, মনিরুজ্জামান মনির, হোসেন মোহাম্ম’দ তোহা, মাজেদুর রহমান মাজেদ, শামীম বিল্লাহ,

এ এস এম নাজমু’স সাদাত, আবরারের রুমমেট মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, মোর্শেদ অমত্য ইস’লাম, এস এম মাহমুদ সেতু, মুহাম্ম’দ মোর্শেদ-উজ-জামান মণ্ডল ওরফে জিসান, এহতেশামুল রাব্বি ওরফে তানিম ও মুজতবা রাফিদ। এদের মধ্যে তিন আ’সামি জিসান, তানিম ও রাফিদ পলাতক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *