মাকে শেষবার দেখতে যাওয়ার পথে হারালেন স্বামী-সন্তান

মায়ের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে শেষবারের মতো দেখতে আদুরি বেগম তার স্বামী ও সন্তানকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছিলেন। যাবার পথে ঘটলো স্পিডবোট দুর্ঘটনা। এতে তিনি হারালেন স্বামী আর সন্তানকে।

সোমবার সকালে মাদারীপুরের শিবচরে স্পিডবোট দুর্ঘটনায় ২৬ জন নিহত হোন। এর মধ্যে আদুরি বেগমের স্বামী আরজু মিয়া ও দেড় বছরের শিশু ইয়ামিনও রয়েছে।

স্পিডবোট দুর্ঘটনায় জীবিত উদ্ধার ছয় জনের মধ্যে আদুরি বেগমকে আহত হওয়ায় হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতাল তার স্বামী ও সন্তানের খোঁজ করলে সেখান থেকে বাংলাবাজার ঘাটের সন্নিকটে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাখা দুর্ঘটনার লা”শের মধ্যে তাদের খুঁজে পান।

স্বামী-সন্তানের লা”শ দেখে ভেঙে পড়েন আদুরি বেগম। তার আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে পরিবেশ। আদুরি বেগম জানান, শিমুলিয়া ঘাট থাইকা গাদাগাদি কইরা স্পিডবোট ছাড়ে চালক। যাত্রার শুরু থিকাই এলোমেলো স্পিডবোট চালাচ্ছিল। শুরুতে একবার বোটটি উল্টো যাচ্ছিল। চালকের কারণেই আইজ আমার স্বামী-সন্তান হারাইলাম।

আদুরি আরো বলেন, মায়ের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে তারা ঢাকা থেকে ফরিদপুর গ্রামের বাড়ি যাচ্ছিলেন।ঘটনায় মাদারীপুর স্থানীয় সরকার অধিদপ্তরের উপপরিচালক আজাহারুল ইসলামকে প্রধান করে ছয় সদস্যদের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন জেলা প্রশাসক রহিমা খাতুন। এছাড়া নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তার ঘোষণাও দেয়া হয়।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক গণমাধ্যমকে বলেন, তদন্ত কমিটিকে আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। লকডাউনে স্পিডবোট বন্ধ থাকার পরেও কেন এমন দুর্ঘটনা-এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, স্পিডবোটটি মুন্সিগঞ্জ থেকে ছেড়ে বাংলাবাজার আসে। তারা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্পিডবোট ছাড়ে। এসব বিষয় কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *